লক্ষ্মীপুর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় চূড়ান্ত খসড়া মন্ত্রনালয়ে
প্রথম পাতা » তথ্যপ্রযুক্তি » লক্ষ্মীপুর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় চূড়ান্ত খসড়া মন্ত্রনালয়ে


মঙ্গলবার ● ৩০ জানুয়ারী ২০১৮

---নিউজ ডেস্ক : লক্ষ্মীপুর জেলাবাসীর বহুল প্রত্যাশিত লক্ষ্মীপুর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (লবিপ্রবি) স্থাপিত হতে যাচ্ছে। জানা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয়টি স্থাপনের জন্য মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে আইনের খসড়া চূড়ান্তকরণের কাজ চলছে।

দেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের ২১ জেলার মধ্যে লক্ষ্মীপুর অন্যতম। সম্প্রতি জেলা ব্র্যান্ডিংয়ের মাধ্যমে ‘সয়াল্যান্ড’ অর্থাৎ সয়াবিনের মাটি হিসেবে স্বীকৃতি অর্জন করেছে লক্ষ্মীপুর। এক সময় এ অঞ্চলের ছেলেদের অধিকাংশই প্রবাসী জীবন বেছে নিতো। কিন্তু বর্তমান সরকারের শিক্ষা বান্ধব কর্মসূচী ও উন্নয়ন এ অঞ্চলের মানুষের জীবনযাত্রায় নতুন মাত্রা যোগ করেছে।

সরকারি হিসাবমতে লক্ষ্মীপুরে বর্তমান শিক্ষার হার ৬২ শতাংশ। গত ৪ বছর থেকে এ জেলার শিক্ষা ব্যবস্থায় আমুল পরিবর্তন দেখা গেছে। সরকারি বেসরকারি উদ্যোগে প্রাইমারি থেকে শুরু করে কলেজ লেভেল পর্যন্ত বহু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে। ফলে এ জেলায় শিক্ষার হার ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে।

শিক্ষার পরিবেশ ও মান সম্মত শিক্ষা ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠায় নিরলসভাবে শ্রম দিয়েছেন এবং দিচ্ছেন লক্ষ্মীপুরে নিযুক্ত সরকারি কর্মকর্তাগণ। আর এসব কর্মকর্তাদের মধ্যে অনেকেই সাধারণ মানুষের মনে স্থান করে নিয়েছেন। জনপ্রিয় এসব কর্মকর্তাদের মধ্যে অন্যতম হলেন, সাবেক জেলা প্রশাসক জিল্লুর রহমান চৌধুরী, সাবেক পুলিশ সুপার শাহ মিজান শাফিউর রহমান, বর্তমান সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ নুরুজ্জামান। বর্তমান কর্মকর্তাগণও উন্নয়নের এ ধারা অব্যাহত রেখেছেন।

তাছাড়া এ জেলার সচেতন নাগরিকরাও এমন উদ্যোগের সাথে ঐক্যমত পোষণ করে শ্রম দিয়েছেন। রাজনৈতিক ও সামাজিক নেতৃবৃন্দের উদারতায় এমন একটি পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। তবে এখন পর্যন্ত সরকারি কিংবা বেসরকারি কোনো বিশ্ববিদ্যালয় লক্ষ্মীপুরে স্থাপিত হয় নি। যে কারণে এ জেলার শিক্ষার্থীরা উচ্চ শিক্ষার জন্য পার্শ্ববর্তী জেলা কিংবা অন্যকোনো জেলায় ছুটে যেতে হচ্ছে।

নোয়াখালীর চৌমুহনী এসএ কলেজের প্রাক্তণ অধ্যক্ষ জেড এম ফারুকী এবং লক্ষ্মীপুর সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ মাইন উদ্দিন পাঠান-এর মতে, লক্ষ্মীপুর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হলে এ জেলার শিক্ষা ব্যবস্থায় নতুন মাত্রা যোগ হবে। যা খুবই জরুরী। কারণ অর্থাভাবে নিজ জেলা ছেড়ে অন্যত্র যাওয়া সম্ভব হয় না অনেক শিক্ষার্থীর। ফলে উচ্চ শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হতে হয় তাদের। লক্ষ্মীপুর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হলে বাংলাদেশসহ বিশ্বের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি খাতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখার সুযোগ পাবে এ অঞ্চলের সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, লক্ষ্মীপুরসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় ৮টি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের কাজ চলমান রয়েছে। তাছাড়া দেশের প্রতিটি জেলায় সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগে অন্তত একটি করে বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের পরিকল্পনা রয়েছে বর্তমান সরকারের।

জানা গেছে, এ কার্যক্রমের আওতায় সরকারের বর্তমান মেয়াদে ২০১৪ সাল থেকে এ পর্যন্ত দেশে ৩টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন করা হয়েছে এবং ১৬টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন ও পরিচালনার অনুমতি প্রদান করা হয়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ০:৩২:২৯ ● ৬১৬ বার পঠিত



পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)



আরো পড়ুন...